Stihl India Mahindra Tractors

৬৪ বছর বয়সী মহিলার পরিশ্রম দেখে স্বাবলম্বী হয়ে ওঠে গোটা গ্রাম

বর্তমান সময়ে নারীরা কোনো কাজে পিছিয়ে নেই। প্রায় সব ক্ষেত্রেই তিনি সাফল্য পেয়েছেন। তো চলুন আজ আপনাদের নিয়ে যাই এমনই একটি গ্রামে, যেখানে নারীদের কঠোর পরিশ্রমে গ্রামটি স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে উঠছে ।

Rupali Das
Rupali Das
৬৪ বছর বয়সী মহিলার পরিশ্রম দেখে স্বাবলম্বী হয়ে ওঠে গোটা গ্রাম

বর্তমান সময়ে নারীরা কোনো কাজে পিছিয়ে নেই। প্রায় সব ক্ষেত্রেই তিনি সাফল্য পেয়েছেন। তো চলুন আজ আপনাদের নিয়ে যাই এমনই একটি গ্রামে, যেখানে নারীদের কঠোর পরিশ্রমে গ্রামটি স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়ে উঠছে ।

হরিয়ানার পানিপত গ্রামের উঝাতে 68 বছর বয়সী নিক্কো দেবীর কঠোর পরিশ্রমের কারণে আজ পুরো গ্রাম মাশরুম চাষে জোর দিচ্ছে। নারীর এ কাজে পুরুষরাও দিচ্ছেন সার্বিক সহযোগিতা। মাশরুম চাষ থেকে একটি পরিবার ৪ লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করছে। জানিয়ে রাখি, নারীর এই কাফেলা এখন ত্রিশজন নারীতে পৌঁছেছে। 

চাষ শুরু 

গ্রামে এই বিপ্লবের সূচনা করেন নিক্কো দেবী। তিনি একদিন তার পশুদের জন্য চরাতে বাড়ি থেকে বের হলে পথে কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্রের বাইরে কয়েকজনকে বসে থাকতে দেখেন। লোকজনকে একসাথে দেখে নিক্কো দেবী জিজ্ঞেস করলেন এখানে কি হচ্ছে? খোঁজ নিয়ে জানা গেল, মাশরুম উৎপাদনের প্রশিক্ষণ চলছে।  প্রশিক্ষণটি দেখে নিক্কোর মনে এটি চাষ করার চিন্তা আসে এবং তারপর তিনি কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্রের ইনচার্জ ডাঃ রাজবীর গর্গ এবং ডাঃ সাতপালের কাছে এই মাশরুম প্রশিক্ষণটি কয়েকদিন শেখার ইচ্ছা প্রকাশ করেন । তাই কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্র তাকে এই কয়েকদিনে এসে এই প্রশিক্ষণ শেখার অনুমোদন দিয়েছে।

আরও পড়ুনঃ  বহু নারীর অনুপ্রেরণা হয়ে উঠেছেন আনেছা বেগম, সংসার চলে চিনা মুরগী পালনে

শুরুতে, নিক্কো প্রায় একশ ব্যাগ নিয়ে মাশরুম চাষ শুরু করেছিলেন।  এক বস্তা থেকে তিন কেজি পর্যন্ত মাশরুম  উৎপাদন  করেন । এর মানে নিক্কো দেবী একাই প্রথম মৌসুমে 300 কেজি মাশরুম উৎপাদন করেছিলেন। নিক্কোর পরিশ্রম ও উপার্জন দেখে গ্রামের অন্যান্য মহিলারাও এই কাজ করতে শুরু করেন। বর্তমানে নিক্কো নিজেই এক মৌসুমে হাজার ব্যাগে মাশরুম উৎপাদন করে বেশ ভালো আয় করছেন।

নিক্কো দেবী বলেন, প্রথমে গ্রামের সব মানুষ ও আমার বাড়ির লোকজন আমাকে নিয়ে মজা করত। তারা বলত অশিক্ষিত, তারা মাশরুম উৎপাদন করবে কী করে। দেখবেন, কিন্তু এখন তাঁরাই  আমার কাছে এই কাজ শিখতে আসে।

আরও পড়ুনঃ   কিরণ মজুমদার দেশের সবচেয়ে বড় ওষুধ কোম্পানির মালিক

নিক্কো আরও জানায়, আমাদের গ্রামের সীমানা বাবলি, নীলম, রেখা মাশরুমের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত, যারা খড় থেকে সার তৈরির কাজ করে। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, আমরা একসাথে প্রায় 10 গুণ 12 এর একটি ঘরে প্রায় 200 টি ব্যাগ প্রস্তুত করি। এই ব্যবসার জন্য আপনাকে কৃষি বিজ্ঞান কেন্দ্র থেকে 102 টাকায় একটি ব্যাগ দেওয়া হয় এবং আপনি এই ব্যাগটি বাজারে 80 টাকা পর্যন্ত পাবেন। আপনি যদি  এই ব্যাগটি নিজে তৈরি করেন, তাহলে এতে মোট খরচ পড়ে 50 টাকা। গ্রামের অনেক মহিলা নিজেই ব্যাগ তৈরি করে মাশরুম চাষ করে ভালো লাভ করছেন। আমরা আপনাকে বলি যে এই ব্যাগগুলি তিন লাখ পর্যন্ত বাজারে স্বাচ্ছন্দ্যে বিক্রি হয়। উপার্জনে আড়াই লাখ টাকা পর্যন্ত সঞ্চয় আছে।

Published On: 04 May 2022, 04:12 PM English Summary: The whole village became self-sufficient after seeing the hard work of a 64-year-old woman

Like this article?

Hey! I am Rupali Das. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters