Black Salt Rice - এই ধানের আবাদে কৃষকরা পাবেন প্রচুর অর্থ, দেশ ছাড়াও বিদেশেও রয়েছে এর চাহিদা

KJ Staff
KJ Staff
Black Salt Rice (Image Credit - Google)
Black Salt Rice (Image Credit - Google)

কালো লবণ ধানের আবাদ কৃষকদের জন্য লাভজনক হিসাবে প্রমাণিত হচ্ছে। আজ এই জাতের ধান পূর্বাঞ্চলের এক নতুন জাত হিসাবে আত্মপ্রকাশ করেছে। এই কারণেই এর চাষের আওতাধীন অঞ্চলটি এ বছর উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পূর্বাঞ্চলের ১১ টি জেলায় এই বিশেষ জাতটি জিআই ট্যাগ অর্জন করেছে।

একটি অনুমান অনুযায়ী, এ বছর এই জেলাগুলিতে প্রায় ৫০ হাজার হেক্টর জমিতে আবাদ করা হবে। এই জাতের ধান আন্তর্জাতিক পর্যায়ে স্বীকৃতি পেয়েছে আর এর পশ্চাতে কৃষিবিদ অধ্যাপক রমচেত চৌধুরী এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। তিনি বলছেন যে জিআই ট্যাগ পাওয়ার পরে এই জাতটির জনপ্রিয়তা ব্যাপকভাবে বেড়েছে। একই সঙ্গে ব্ল্যাক সল্ট রাইস ফেস্টিভালও এটিকে একটি বিশেষ পরিচয় দিয়েছে।

প্রতি একর থেকে ২২ কুইন্টাল ফলন (Yield from 22 quintals per acre) -

প্রফেসর চৌধুরী বলেন যে, জিআই ট্যাগ পাওয়ার কারণে এই জাতটি বিশেষ স্বীকৃতি পেয়েছে। ২০০৯ সাল নাগাদ, পূর্বাঞ্চলে প্রায় ২ হাজার হেক্টর জমিতে কালো লবণ ধানের চাষ হত। তবে বর্তমানে পূর্বাঞ্চলে এর অঞ্চলটি ৪৫ হাজার হেক্টর জমিতে পৌঁছেছে। পূর্বাঞ্চলে সিদ্ধার্থ নগর অঞ্চলটি এই জাতের ধান আবাদে সর্বোচ্চ। তিনি জানিয়েছেন যে, এই জাতের ধানের আবাদ ১ লাখ হেক্টর জমিতে পৌঁছানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এই বিশেষ জাতের ধান কৃষকদের জন্য খুব উপকারী হতে পারে। আসলে এর দাম বাসমতী চালের চেয়ে বেশি। এই ব্ল্যাক সল্ট রাইস জাতের ধান থেকে প্রতি একরে ২২ কুইন্টাল পর্যন্ত ফলন পেতে পারেন কৃষকরা।

সিঙ্গাপুর সহ অনেক দেশে রফতানি হচ্ছে এই ধান -

এই বিশেষ জাতের ধানে শর্করা থাকে না তবে প্রোটিন, আয়রন এবং জিঙ্ক জাতীয় পুষ্টি প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। এতে অন্যান্য ধানের তুলনায় চারগুন জিঙ্ক, তিনগুন লৌহ এবং দ্বিগুণ প্রোটিন রয়েছে। এ কারণেই বিদেশেও এর চাহিদা বৃদ্ধি হয়েছে। বিগত বছরে অনেক দেশে এই ধান রফতানি করা হয়েছে। গত বছর সিঙ্গাপুরে প্রথম ২০০ কুইন্টাল ধান রফতানি করা হয়েছিল। সেখানকার মানুষেরা এটি খুব পছন্দ করেন এবং পুনরায় ৩০০ কুইন্টাল ধান অর্ডার করা হয়েছিল। একইভাবে, দুবাইতে ২০ কুইন্টাল ধান এবং এক কুইন্টাল চাল জার্মানিতে রফতানি করা হয়েছে।

কোন জেলা জিআই ট্যাগ পেয়েছে -

পূর্বাঞ্চলের ১১ টি জেলা জিআই ট্যাগ পেয়েছে। মহারাজগঞ্জ, গোরখপুর, সিদ্ধার্থ নগর, সন্ত কবীরনগর, বলরামপুর, বাহরাইচ, বাস্তি, কুশিনগর, গন্ডা, বড়বঙ্কি, দেওরিয়া এবং গন্ডা ইত্যাদি জেলাগুলি জিআই ট্যাগ পেয়েছে। তারা উভয়ই এই বিশেষ জাতটি উত্পাদন এবং বিক্রয় করতে পারে।

আরও পড়ুন - Banana Farming: জেনে নিন আধুনিক উপায়ে কলা চাষের সঠিক পদ্ধতি

কৃষকদের জন্য সুখবর হল, যে জেলাগুলি জিআই ট্যাগ পেয়েছে, সেই জেলাগুলিতে কৃষকরা এই ধানের উৎপাদন করতে পারেন এবং বিক্রি করতে পারেন।

আরও পড়ুন - Profitable vegetable farming: বর্ষায় কোন কোন সবজি চাষে কৃষকরা লাভবান হবেন?

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters