এই তিনটি বৃক্ষ চাষে কোটি টাকা উপার্জন হবে কৃষকবন্ধুদের (Profitable Tree Farming Business)

KJ Staff
KJ Staff
Tree Farming Business (Image Credit - Google)
Tree Farming Business (Image Credit - Google)

বর্তমান সময়ে, প্রতিটি ব্যক্তি যথাসম্ভব উপার্জন করতে চায়। এমন পরিস্থিতিতে কৃষকরা যদি সঠিক সহায়তা এবং ধারণা পান তবে তারাও ভাল লাভ করতে পারবেন। তাদের সঠিক উপায়ে গাইড করা দরকার। ভারতের বেশিরভাগ কৃষক শাকসবজি, ফলমূল এবং শস্য ইত্যাদি চাষ করেন, তবে আজ আমরা এই নিবন্ধে আপনাকে ফসল নয়, উদ্ভিদের চাষ সম্পর্কে বলব। আপনি এই উদ্ভিদ চাষ করে ভবিষ্যতে ভাল পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। এই জন্য, সামান্য ধৈর্য প্রয়োজন এবং এটি আপনার জন্য দীর্ঘমেয়াদী বিনিয়োগ হিসাবে প্রমাণিত হবে।

আসুন তাহলে এই উদ্ভিদ চাষ সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিই -

পিচ গাছের চাষ (Pitch Tree Framing) -

এটি একটি দ্রুত বর্ধনশীল গাছ। ভারত ছাড়াও এটি বিদেশে যেমন কম্বোডিয়া, মায়ানমার, থাইল্যান্ড ইত্যাদি জায়গায় খুব বেশি পরিমাণে দেখা যায়। এর পাতা ওষুধ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। এই উদ্ভিদের পাতার নির্যাস আলসার জাতীয় সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে খুব উপকারী বলে বিবেচিত হয়।

চাষে লাভ -

এক একরে ৫০০ টি গাছ রোপণ করা যায়। এই গাছের চাষ থেকে প্রাপ্ত আয় কাঠের মানের উপর নির্ভর করে। যদি আমরা পিচ উদ্ভিদ চাষের ব্যয় নিয়ে কথা বলি, তবে এতে মোট ব্যয় ৪০ থেকে ৫৫ হাজার টাকা পর্যন্ত হয়। আর যদি আমরা পিচ উদ্ভিদ চাষে উপার্জনের হিসেব করি তাহলে আপনি জেনে অবাক হবেন যে, এক একর জমিতে লাগানো উদ্ভিদগুলি থেকে মোট এক কোটি টাকা উপার্জন হতে পারে।

চন্দন গাছের চাষ (Sandalwood Tree Framing) -

এই উদ্ভিদ চাষে এত বেশি লাভ রয়েছে যে, আপনি কোনও সরকারী বা বেসরকারী প্রকল্পে বিনিয়োগ করলে এত টাকা রিটার্ন পাবেন না। যদি সহজ ভাষায় বলি, তবে ১ লক্ষ টাকা বিনিয়োগ করে আপনি ভবিষ্যতে ১.৫ কোটি টাকা পর্যন্ত লাভ পেতে পারেন। আপনি যদি কোনও স্কিমে ১৫-২০ বছর ধরে এত বেশি অর্থ বিনিয়োগ করেন তবে আপনি কখনই এত সুবিধা পাবেন না। অন্য কোন ফসল বা উদ্ভিদ চাষেও এত উপার্জন হওয়া কষ্টসাধ্য বটে। এই উদ্ভিদ রোপণের পরে, এর কাঠ পঞ্চমতম বছর থেকে সরস হতে শুরু করে। প্রায় ১২ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে, এর কাঠ বিক্রির জন্য প্রস্তুত হয়ে যায়। একটি উদ্ভিদ থেকে ৪০ কেজি পর্যন্ত ভাল কাঠ বের করা যায়।

চন্দন চাষের ব্যয় -

চন্দন উদ্ভিদ চাষে ১ একর জমিতে ৫০০ টি পর্যন্ত গাছ রোপন করা হয়। যদি আমরা চন্দন গাছের চাষের ব্যয় সম্পর্কে কথা বলি, তবে এতে মোট ব্যয় ৪০-৬০ হাজার টাকা প্রয়োজন হয়। আর আমরা যদি চন্দন গাছের চাষে উপার্জনের কথা বলি, তবে এর ১ টি গাছের দাম সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা।

সেগুনের চাষাবাদ (Sagwan Tree Framing) –

আমাদের দেশে সেগুন গাছ অত্যধিক পরিমাণে চ্ছেদন হয়, যার কারণে বনে এই গাছের সংখ্যা এখন খুব কম। এই গাছের কাঠের মান অত্যন্ত ভাল হওয়ায়, বাজারে এর চাহিদা ক্রমবর্ধমান। কারণ এর কাঠ দ্রুত ক্ষয় হয় না বা এতে ঘুণ ধরে না। শুধু তাই নয়, এই কাঠ জলের কারণে নষ্ট হয়ে যায় না। যার কারণে এর কাঠ আসবাবপত্র, প্লাইউড ইত্যাদি নির্মাণের জন্য বেশি ব্যবহৃত হয়। সেগুন চাষ করতে, আপনি সহজেই ১ একর জমিতে প্রায় ৪০০ টি গাছ রোপণ করতে পারেন। এর চাষের জন্য এবং মাটি প্রস্তুতের জন্য মোট ব্যয় ৪০ থেকে ৪৫ হাজার টাকা পর্যন্ত। বাজারে একটি গাছের দাম প্রায় ২০ থেকে ৪০ হাজার টাকা, যদি ৪০০ গাছ থাকে, তবে আপনি সহজেই ১ কোটি ২০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন।

সেগুন গাছের চাষ ব্যয় -

সাড়ে এক একর জমিতে ৪০০ টি উদ্ভিদ জন্মায়। সেগুন গাছের চাষের ব্যয় সম্পর্কে যদি কথা বলি, তবে এতে মোট ব্যয় প্রায় ৪০-৪৫ হাজার টাকা। আর যদি আমরা সেগুন গাছের চাষে উপার্জনের কথা বলি, তবে এই গাছের ১ টি গাছের মূল্য ৪০ হাজার পর্যন্ত। আপনি ৪০০ টি গাছ রোপণ করে থাকেন, তবে তা থেকে লক্ষ লক্ষ অর্থ আয় করতে পারবেন।

আরও পড়ুন - সয়া পনির থেকে উপার্জন করুন লক্ষ লক্ষ টাকা, কীভাবে জানুন বিস্তারিত (Tofu Business)

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters