আলুর রোগ ও তার প্রতিকার

Saikat Majumder
Saikat Majumder
আলু চাষ

মূলত শীতকালেই বেশীরভাগ আলু চাষ করা হয়। আবহাওয়া পরির্বতনের কারনে  আলুতে নানা ধরনের রোগের প্রবণতা দেখা যায়।এই রোগগুলি মূলত ছত্রাক, শুক্রাণু ও ভাইরাস দ্বারা গঠিত। এই রোগের কারণে ৫০ থেকে ৯০ শতাংশ ফসল নষ্ট হয়ে যায়। বায়ুমণ্ডলে উচ্চ আর্দ্রতা এবং প্রতিকূল জলবায়ুর কারণে প্রতি বছর চাষিদের ভয়াবহ ক্ষতির মুখে পরতে হয়। কৃষকদের সঠিক জ্ঞান না থাকার কারণে তারা দোকানদার বা ব্যবসায়ীদের পরামর্শে নানা কীটনাশক ব্যবহার করেন।এতে ফসল তো রোগমুক্ত হয়ই না উল্টো দোকানদার একাধিক কীটনাশকের কৌটো ধরিয়ে দিয়ে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। কিন্তু কৃষক যদি প্রত্যেকটি রোগের লক্ষণ সম্পর্কে জানতেন তাহলে নিজেই সঠিকভাবে রোগ নির্ণয় করে সঠিক কীটনাশকটিই ব্যবহার করতে পারতেন। এমন পরিস্থিতিতে সময়মতো সঠিক রোগের চিকিৎসা করালে কৃষকদের জন্য ভালো হয়। তাই আজ আমরা আলোচনা করব কিভাবে ফসলকে পোকামাকড়ের আক্রমণ থেকে রক্ষা করা যায়।

আলুর আগাম ধসা রোগ (early blight of potato)

এটি একটি ছত্রাকজনিত রোগ। ফোমা এক্সিগুয়া নামক ছত্রাক দ্বারা সৃষ্ট ফোলিয়ার স্পট রোগ। আক্রান্ত গাছের পাতায় কিছু কিছু স্থানে বৃত্তাকার অথবা গরুর চোখের মনির মতো দেখতে দাগ সৃষ্টি হয়। এটি আলুর কান্ডে ১.০ থেকে ২.৫ মিমি আকারের বড়, হালকা বা গাঢ় বাদামি রঙের গোলাকার দাগ তৈরি করে ।সাধারণ যখন আলু গুটি বাঁধতে শুরু করে এবং ‍গুটি বড় হতে থাকে তখন থেকে শুরু করে আলু সংগ্রহের আগে পর্যন্ত এ রোগ দেখা দিতে পারে।

প্রতিকার

সঠিক পরিমাণে সার প্রয়োগ।

সময়মত সেচ প্রদান।

পাতায় দাগ দেখা দিলে ১ লিটার জলে ২ গ্রাম Mencozeb বা Iprodione গ্রুপের ছত্রাকনাশক ব্যবহার করতে হবে।

আরও পড়ুনঃ সঠিক নিয়মে 'গাছ আলু' চাষ পদ্ধতি (Method Of Potato Cultivation)

আলুর বিলম্বিত ধসা রোগ (LATE BLIGHT OF POTATO)

এ রোগকে পটেটো ব্লাইট বা আলুর মড়কও বলে।এই তিনটি রোগ (আর্লি ব্লাইট, লেট ব্লাইট এবং ফোমা) রোগ সৃষ্টিকারী কান্ডেও সংক্রমিত করে এবং সংরক্ষণের সময় বেঁচে থাকার ক্ষমতা রাখে। ওয়াটার মোল্ড Phytophthora infestens ছত্রাক বা অ্যালগি এ রোগের জন্য দায়ী। রোগাক্রান্ত কান্ড প্রাথমিক উৎস হিসেবে কাজ করে। সাধারণত এই রোগগুলি মাঝারি তাপমাত্রা (১৭থেকে ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস) এবং উচ্চ আর্দ্রতায় (৭৫%) ছড়িয়ে পড়ে।

প্রতিকার

রোগমুক্ত বীজ বপন।
বীজ শোধনের জন্য Carbendazim ৫০WP ১লিটার জলে ৩ গ্রাম মিশিয়ে ১ কেজি বীজে ব্যবহার করতে হবে।
আক্রান্ত গাছ কেটে পুড়িয়ে ফেলতে হবে।
Mencozeb ৪গ্রাম/লিটার কিংবা Carbendazim ৫০WP ২ গ্রাম/লিটার জলে মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।

কাঠকয়লা পচা 

ম্যাক্রোফোমিনা ফেসিওলি নামক ছত্রাকের কারণে এই রোগ হয়। এই ছত্রাক মাটিতে পাওয়া যায়। যেসব আলু মার্চ-এপ্রিল মাসে সার দেওয়া হয় সেসব আলুতে এ রোগের আক্রমণ বেশি হয়। একই সময়ে, মাটির তাপমাত্রা ২৮০ সেন্টিগ্রেডের বেশি হলে এই রোগের প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধি পায়।

আরও পড়ুনঃ অনেক পেয়ারাই তো দেখেছেন! কালো পেয়ারা দেখেছেন কখোনো? জেনে নিন কালো পেয়ারার গুন

উপসর্গ

কান্ডের উপরিভাগ ছাই রঙের হয়ে যায়। কান্ড সংলগ্ন অংশ কালো হয়ে যায়। শিকড় বাদামী রঙের হয়ে যায় এবং পচে যায়।এরপর এই রোগ কান্ডকেও সংক্রমিত করে এবং ধীরে ধীরে পুরো আলু পচে যায়। এই রোগ শুধুমাত্র কান্ডে পাওয়া যায়।

সমন্বিত ব্যবস্থাপনা

এমতাবস্থায়, ফসল তাড়াতাড়ি সংরক্ষন করা উচিত। যদি কোনো কারণে ফসল সংরক্ষন করতে দেরি করতে হয়, তাহলে জমিতে যত তাড়াতাড়ি সেচ দিতে হবে যাতে মাটির তাপমাত্রা বেড়ে না যায়।

Published On: 09 February 2022, 10:47 AM English Summary: Potato disease and its cure

Like this article?

Hey! I am Saikat Majumder. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters