Crops destroyed due to Yaas: কমপক্ষে ১২৫ কোটি টাকার ফসল নষ্ট, যশের জেরে ক্ষতির মুখে পূর্ব বর্ধমানের কৃষকরা

KJ Staff
KJ Staff
Crop ruined (Image Credit - Google)
Crop ruined (Image Credit - Google)

ঘূর্ণিঝড় বা যশের প্রভাবে টানা বৃষ্টিপাতে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পূর্ব বর্ধমানের কৃষকরা | বহু কৃষি জমি চলে গেছে জলের তলায় |ফলে তিল, আখ, গ্রীষ্মকালীন সব্জিতে ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। কৃষি দপ্তরের প্রাথমিক রিপোর্ট অনুযায়ী, জেলায় তিল, আখ ও সবজি চাষে ১২৫ কোটি টাকারও বেশি ক্ষতি হতে পারে। এদিকে সব্জির ক্ষতি হলে ফের খোলা বাজারে দাম বাড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। শুধু সব্জি নয়, মাছ চাষেও ব্যাপক ক্ষতি দেখা দিয়েছে |

ক্ষয়-ক্ষতির পরিমান:

পূর্ব বর্ধমান জেলার উপ-কৃষি অধিকর্তা (প্রশাসন) জগন্নাথ চট্টোপাধ্যায়ের মত অনুযায়ী, টানা বৃষ্টিতে সব মিলিয়ে জেলায় ১২৫ কোটি ৭৭ লক্ষ ৬০ হাজার টাকার ফসল ক্ষতি হয়েছে । এছাড়াও,  ব্লক ভিত্তিক বিস্তারিত রিপোর্ট তৈরি করছে কৃষি দপ্তর। জানা গিয়েছে, বোরোধান প্রায় উঠে গিয়েছে। না হলে আরও বড় ক্ষতির আশঙ্কা ছিল। তা সত্ত্বেও অন্য ফসল ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছে। জেলায় এবার তিল চাষ হয়েছে প্রায় ২৫ হাজর হেক্টরে। তার প্রায় অর্ধেক, ১২ হাজার ৮৯৮ হেক্টর জমির তিল (Sesame cultivation)নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়া ৭১৪২ হেক্টর জমির সব্জি (Vegetables farming) ও ৩৭৩ হেক্টর জমির আখ নষ্টের আশঙ্কাও  দেখা দিয়েছে।

কালনা, পূর্বস্থলী, মন্তেশ্বর ব্লকে এইসময় পাট, তিল ও সবজি চাষ হয়ে থাকে। কালনা মহকুমা এলাকায় এবার ৩৭৬০ হেক্টর জমিতে তিল চাষ হয়। এর মধ্যে প্রথমিকভাবে ১৯৯৫ হেক্টর জমির তিল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়াও ৬২০০ হেক্টর জমিতে সবজি চাষ হয়। তার মধ্যে ৪৯২৭ হেক্টর জমির সবজি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

কালনা মহকুমা সহ কৃষি অধিকর্তা পার্থ ঘোষ জানান,  গোড়া পচে গাছ নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। আবহাওয়া ঠিক হয়ে গেলে ভাল করে জমি পর্যবেক্ষণ করে প্রাথমিকভাবে গাছের পচন আটকাতে ছত্রাক নাশক ওষুধ স্প্রে করতে হবে বলে তিনি জানান। বৃহস্পতিবার বর্ধমান শহর লাগোয়া গ্রামগুলিতে দেখা যায় সবজি জলের তলায় রয়েছে। ঝড়ের দাপটে মাচা ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আরও পড়ুন - Dairy Farming: কড়া লকডাউনে ব্যাপক ক্ষতির মুখে ডেইরি শিল্প, মাথায় হাত দুগ্ধ কৃষকদের

অন্যদিকে এই দুর্যোগে মাছ  চাষেও  (Fish farming) ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। মৎসমন্ত্রী অখিল গিরি জানিয়েছেন, পেটুয়াঘাট মৎস্যবন্দর তছনছ হয়ে গিয়েছে। মৎস্যদপ্তরের অফিসও জলের নিচে চলে গেছে। শুঁটকি মাছ উৎপাদন কেন্দ্রের অবস্থাও এক। তবে, পূর্ব মেদিনীপুরের মৎস্যজীবীরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন | ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে চাষীদের বিরাট ক্ষয়-ক্ষতি কাটাতে সময় লাগবে বলেই ধারণা করা যায় |

নিবন্ধ: রায়না ঘোষ

আরও পড়ুন - LIC Recruitment 2021: শহরে LIC দপ্তরে কর্মী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি, জেনে নিন আবেদন পদ্ধতি

Like this article?

Hey! I am KJ Staff. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters