Hibiscus Flower Farming: জবা ফুল চাষের পদ্ধতি শিখে হয়ে উঠুন লাভবান কৃষক

Hibiscus Flower farming
Hibiscus Flower farming

পুজো হোক বা উপাসনা, আয়ুর্বেদ হোক বা ভেষজ ওষধি- জবা ফুল বাঙালি জীবনে অন্যতম এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ। সাহিত্য অথবা গানের লাইনেও বারংবার প্রতিফলিত হয়েছে জবার সৌন্দর্য্যের বিভিন্ন দিক। বিভিন্ন রঙের জবা পাওয়া গেলেও লাল জবা অথবা রক্তজবা মানুষের দৈনন্দিন জীবনে বেশিরকমের গুরুত্ব পেয়েছে। গোটা বছর ধরেই জবার ভীষণ ভাবে চাহিদা থাকার জন্য এই ফুল বাণিজ্যিক ভাবে প্রচুর চাষ হয়। বাংলার প্রায় প্রতিটি ঘরের উঠোনেও এই ফুল ফুটতে প্রচুর পরিমানে দেখা যায়। পুষ্পধারী গুল্ম জাতীয় এই উদ্ভিদের মূলত পূর্ব এশিয়াতেই উদ্ভব। বলা চলে ভাদ্র-অশ্বিন মাসেই এই ফুলের চাষের সবথেকে ভালো সময়। চাষিরাও এই ফুল চাষ করে ভীষণই আর্থিক ভাবে উপকৃত হন। বাজারে প্রচুর চাহিদা থাকায় জবা ফুল চাষ যথার্থ ভাবেই একটি অর্থকরী চাষ। জেনে নেওয়া যাক, জবা ফুলের চাষের সহজতম পদ্ধতি।

মাটি (Soil)

বেলে-দোঁয়াশ মাটিতে জবা ফুল ভালো ফুটলেও, প্রায় সব মাটিতেই এই চাষ সম্ভব। জেনে রাখা ভালো সার মিশিয়ে মাটি তৈরি করলে ফুলের গুনগত মান ভালো হয়।

রোপন পদ্ধতি(Planting)

জবা গাছ বসানোর ক্ষেত্রে প্রতি সারিতে ৩-৪ মিটার অন্তর দেড় ফুট ঘন গভীর গর্ত করতে হবে। চারা লাগিয়ে গোড়ার মাটি চেপে দিতে হবে। জলও দিতে হবে প্রয়োজন মতো। মাটির পাশাপাশি টবেও এই গাছ লাগানো যেতেই পারে। তবে সেক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে টবটিতে যেন জল দাঁড়াতে না পারে। উপযুক্ত রোদ লাগে, এমন জায়গাতেই টবটি রাখতে হবে। পাঁচ-ছ’ঘণ্টা রোদ থাকে, এমন জায়গায় জবা গাছ বসানো সবসময় উচিত। গাছে ফুল আসার সময়ে প্রতি লিটার জলে ২৫ মিলিলিটার ল্যানোফিক্স মিশিয়ে দৈনিক হারে স্প্রে করে দিতে হবে। 

সার প্রয়োগ (Fertilizer)

জবা গাছের গোড়ায় মাটি খুঁড়ে সার বর্ষার আগে ও শীতের মরশুমে দেওয়া উচিত। পুকুরের জলজ পাঁকও জলজ সার হিসাবে দেওয়া যায়। জবা গাছ খুব তাড়াতাড়ি বাড়ার জন্য এই চাষ নিয়ে চাষিদের কোনও মাথাব্যথা থাকারও কথা নয়।

আরও পড়ুন: Arabian jasmine Farming Process: বেল ফুল চাষ করে কি আদৌ প্রচুর লাভ সম্ভব? জেনে নিন

রোগবালাই প্রতিকার (Disease Management)

পাতা হলুদ হয়ে যাওয়া জবা গাছের অন্যতম অসুখ হিসাবে গণ্য করা হয়। জল দেওয়ার ফলে মূলত শীতকালে এই সমস্যা দেখা যায় বলে অনেকে মনে করেন।  গ্রীষ্মকালে অত্যন্ত তাপে অনেক সময় পাতা শুকিয়েও যায়। এছাড়া পাতায় মাঝে মাঝে সাদা দাগ দেখা যায়। ওই সমস্যা দেখা দিলে সাবান দিয়ে পাতা ধুয়ে দেওয়া উচিত। গাছের গোড়ায় যাতে সাবান জল যাতে না পৌঁছায় তাতে খেয়াল রাখতে হবে।

জবা গাছের পরিচর্যা (caring)

শীতকালে অন্যান্য ঋতুর তুলনায় কম জল প্রয়োজন হয় জবা গাছের। এই সময়ে গাছের গোড়া বেশি ভিজে থাকলে অনেক সময় মরে যায় জবা গাছ ৷ বছরে দু'বার করে এই গাছ ছাটাই করা উচিত। ফাল্গুন-চৈত্র ও ভাদ্র-আশ্বিন মাসে গাছ ছেটে দেওয়ার সবথেকে উত্তম সময়। মনে রাখতে হবে জবা চাষ করার সময় যাতে আগাছা না বাড়তে পারে। আগাছা হলে সঙ্গে সঙ্গে তা পরিষ্কার করে দেওয়া আশু কর্তব্য। 

আরও পড়ুন: Tomato Farming: আধুনিক পদ্ধতিতে টমেটো চাষ করে অধিক উপার্জন করুন

Like this article?

Hey! I am কৌস্তভ গাঙ্গুলী. Did you liked this article and have suggestions to improve this article? Mail me your suggestions and feedback.

Share your comments

আমাদের নিউজলেটার অপশনটি সাবস্ক্রাইব করুন আর আপনার আগ্রহের বিষয়গুলি বেছে নিন। আমরা আপনার পছন্দ অনুসারে খবর এবং সর্বশেষ আপডেটগুলি প্রেরণ করব।

Subscribe Newsletters