রাজ্য সরকারের উদ্যোগে ৫ কোটি ম্যানগ্রোভ (Plant Mangrove Tree) অরণ্য রোপণ সুন্দরবনে

Saturday, 06 June 2020 09:26 PM

কলকাতা থেকে ১১০ কিলোমিটার দূরের সুন্দরবনের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, বনজ সম্পদ সকলকে মুগ্ধ করে। ঐতিহ্যবাহী ম্যানগ্রোভ অরণ্যে ঘেরা ৪২৬৪ বর্গকিলোমিটার প্রশস্ত অঞ্চল জুড়ে বিস্তীর্ণ ঘন জঙ্গলে রয়েছে রয়েল বেঙ্গল টাইগারও। নদী এবং ছোট-বড় দ্বীপ দ্বারা পরিবেষ্টিত সুন্দরবন প্রাকৃতিক সম্পদের প্রাচুর্যের কারণে পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখতে বিশেষভাবে সহায়ক। কিন্তু সম্প্রতি প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং ঘূর্ণিঝড়ের পুনরাবৃত্তির কারণে সুন্দরবন বর্ণহীন হয়ে উঠছে।

ঘূর্ণিঝড়ে বিপর্যস্ত সুন্দরবন –

গত মাসের ২০ তারিখে ঘটে যাওয়া ঘূর্ণিঝড় 'আমফান' সুন্দরবনের সৌন্দর্য কেড়ে নিয়েছে। নদীর বাঁধ প্রায় ৯০ কিলোমিটার ব্যাসার্ধ জুড়ে ভেঙে রয়েছে। সমুদ্রের লবণাক্ত জলের প্রবেশের কারণে মিষ্টি জলে বসবাসকারী অগণিত মাছের মৃত্যু হয়েছে। সুন্দরবন অঞ্চলের আর্দ্র মাটিতে জন্মানোর বেশিরভাগ ফসলই লবণাক্ত জল পেয়ে নষ্ট হয়ে গেছে। সৈকতের কাছাকাছি থাকার কারণে, সুন্দরবন 'আমফান'-এর ১৯০ কিলোমিটার গতি প্রতিরোধ করতে ব্যর্থ হয়েছে। অসংখ্য গাছ ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত, রয়েল বেঙ্গল টাইগার সহ অন্যান্য ছোট প্রাণীর অবস্থাও করুণ।

রাজ্যের মুখ্য বন কর্মকর্তা রবিকান্ত সিংয়ের মতে, সুন্দরবন অঞ্চলে অবস্থিত বন বিভাগের বেশিরভাগ অফিস এবং ক্যাম্পগুলি 'ঝড়ের' কারণে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ জায়গাগুলিতে বেড়া দিয়ে বন বিভাগের ভাঙ্গা শিবির এবং অন্যান্য অফিস মেরামত করার কাজ শুরু হয়েছে।

সুন্দরবনের আশেপাশের আবাসিক এলাকায় সেনাবাহিনী পুনর্গঠনের কাজে সহায়তা করছে। গাছপালা সরিয়ে, বৈদ্যুতিক খুঁটি পুনরুদ্ধার করে সুন্দরবনের আবাসিক এলাকায় জীবন ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়ে উঠছে।

ঝড়ের কারণে সমুদ্রের লবণাক্ত জল ক্ষেতে প্রবেশ করে ফসল নষ্ট হয়ে গেছে, কৃষকরা ক্ষতির কারণে তাদের কৃষিজমিও বিক্রি শুরু করেছে।  

পূর্বেও সুন্দরবনকে রক্ষা করেছে ম্যানগ্রোভ অরণ্য -

২০০৯ সালেও সুন্দরবনের নদীর ড্রেনের বেশিরভাগ বাঁধগুলি ঘূর্ণিঝড় 'আইলা' দ্বারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছিল। তত্কালীন বামফ্রন্ট সরকার বাঁধ মেরামতের জন্য ৫০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছিল। বাঁধ সংস্কারের কাজ শেষ হওয়ার আগেই ২০১৯ সালে ঘূর্ণিঝড় 'বুলবুল'-এর প্রভাবে আবার ক্ষতি হয়। এর ছয় মাসের মধ্যে, 'আমফান' যেভাবে বিপর্যয় সৃষ্টি করেছে, তা সুন্দরবনের সৌন্দর্য কেড়ে নিয়েছে। সুন্দরবনের প্রাণীজগৎ থেকে শুরু করে ম্যানগ্রোভের বন পর্যন্ত সঙ্কটের মেঘ জমতে শুরু করেছে। পরিবেশবিদদের মতে, বনের এক তৃতীয়াংশ লোকসানের কারণে পরবর্তীকাল থেকে সর্বদা প্রাকৃতিক দুর্যোগের সংকট থাকবে এবং ক্ষয়ক্ষতিও হবে। বারবার ঝড়ের কারণে সুন্দরবনের এক তৃতীয়াংশ বন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে এবং এটি উদ্বেগের বিষয়।

ঝড়ের কবলে পড়ে ৪,২০০ বর্গকিলোমিটার বনের মধ্যে প্রায় ১,০০০ বর্গকিমি. ধ্বংস হয়ে গেছে। এই গাছগুলি বহু প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে মানুষকে বাঁচিয়েছে। ম্যানগ্রোভের একটি বড় অংশটি ঘূর্ণিঝড় দ্বারা ধ্বংস হয়ে গেছে। ম্যানগ্রোভগুলি অতীতে বহুবার সুন্দরবনকে বাঁচিয়েছে, এমনকি আইলার সময়েও (২০০৯ সালের মে মাসে ঘূর্ণিঝড়)।

মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, আমরা সুন্দরবনে পাঁচ কোটি ম্যানগ্রোভ গাছ লাগাব”। গতকাল বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে ঘোষণা করা হয়, রাজ্য বন বিভাগ এই কর্মসূচিটি ১৪ ই জুলাই থেকে শুরু করবে। বন বিভাগের প্রধান প্রধান সংরক্ষণক রবি কান্ত সিনহা বলেছেন, সুন্দরবন এলাকায় বন বিভাগের নার্সারি থেকে গাছ পরিবহন করা হবে। মানবকে সুন্দরবন বাঁচাতে উদ্যোগী হতে হবে এবং রাজ্য সরকার, কেন্দ্রীয় সরকার ও বাংলাদেশ সরকারকেও এগিয়ে থাকতে হবে।

Related Link - 

সুপার সাইক্লোন আমফানের (Amphan-hit areas) ক্ষতিপূরণ বাবদ রাজ্যের আবেদন এখন ৮০ হাজার কোটি টাকা

English Summary: West Bengal Government Will Plant 5 Cr. Mangrove Trees in Sundarban

CopyRight - 2018 Krishi Jagran Media Group. All Rights Reserved.